- সয়াবিন

সয়াবিন সয়াবিন

রূপালীসাদা মাছি

বালাই

Aleyrodidae


সংক্ষেপে

  • পাতার উপরে হলুদ দাগ দেখা যায়.
  • গাঢ় কালচে বর্ণের পাউডারি মোল্ড জন্মায়.
  • পাতা বিকৃত আকার ধারণ করে, কুঁকড়ে যায় বা কাপের মতো আকৃতি ধারণ করে.
  • গাছের বৃদ্ধি থমকে যায়।.
 - সয়াবিন

সয়াবিন সয়াবিন

উপসর্গ

খোলা মাঠ ও গ্রীনহাউসে জন্মানো বিভিন্ন জাতের ফসলে সাদা মাছির আক্রমণ খুব সাধারন ঘটনা। কীড়া ও বয়স্ক পোকা গাছের রস শোষণ করে এবং পাতা, কাণ্ড ও ফলের উপরে এক ধরণের মিষ্টি রস নিঃসরণ করে। আক্রান্ত কোষকলার উপরে হলুদাভ দাগ ও স্যুটি মোল্ড জন্মাতে দেখা যায়। মারাত্মক সংক্রমণের কারণে দাগগুলো একত্রিত হয়ে শিরা ব্যতীত পুরো পাতা হলুদ বর্ণ ধারণ করে। পরবর্তীতে পাতা বিকৃত হয়ে কুঁচকে যায় অথবা কাপ আকৃতি ধারণ করে। কিছু রূপালী সাদা মাছি ভাইরাসও ছড়িয়ে থাকে, যেমন-টমেটোর হলুদ পাতা কার্ল ভাইরাস বা কাসাভা বাদামী দাগ ভাইরাস।

চলমান ফসলের ডাক্তারের সাহায্যে আপনার জমিতে ফলন আরো বৃদ্ধি করুন!

এখন বিনামূল্যে এই অ্যাপ পান!

এখানেও পাওয়া যেতে পারে

এটা কি কারণে হয়েছে

রূপালীসাদা মাছি আকারে প্রায় ০.৮ মি.মি. হয়ে থাকে। মাছির শরীর এবং ডানা সাদা অথবা হলুদাভ পাউডারী মোমে আবৃত থাকে। এদের বেশিরভাগ সময় পাতার নিচে দেখা যায়, এবং গুরুতর আক্রান্ত গাছ নাড়ালে অসংখ্য ছোট ছোট সাদা পূর্ণবয়স্ক মাছি দল বেঁধে বের হয়ে আসে। এরা উষ্ণ, শুষ্ক আবহাওয়ায় সংখ্যায় বেড়ে ওঠে। পাতার নিচে স্ত্রী মাছি ডিম পাড়ে। স্বল্পবয়সী পোকা হলুদ থেকে সাদা বর্ণের, চ্যাপ্টা, ডিম্বাকৃতি ও ফ্যাকাশে সবুজ হয়। বয়স্ক পোকা আবাসী গাছ থেকে খাদ্য না খেয়ে কয়েকদিনের বেশী বেঁচে থাকতে পারে না। এর ফলে আগাছা-নিয়ন্ত্রণ করাটা রূপালীসাদা মাছির বংশবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণের একটি প্রধান উপায় বলে বিবেচিত হয়।

জৈব নিয়ন্ত্রণ

নির্দিষ্ট প্রজাতির সাদামাছি ও ফসলের উপর জৈবিক দমন ব্যবস্থা নির্ভর করে। কার্যকরী নিয়ন্ত্রণের জন্য সুগার-আপেলের তেল, পাইরেথ্রিনস, কীটনাশক সাবান, নিম বীজের নির্যাস (NSKE ৫%), নিম তেল (৫ মিলি/প্রতি লিটার জল) ইত্যাদি প্রাকৃতিক কীটনাশক ব্যবহার করুন। পোকার আক্রমণ দমনে জীবাণু ছত্রাক যেমন বিউভেরিয়া ব্যাসিয়ানা, ইসারিয়া ফুমোসরোসিয়া, ভার্টিসিল্লিয়াম লেকানি ও পেসিলোমাইসেস ফিউমোসোরোসিয়াস ব্যবহার করা হয়।

রাসায়নিক নিয়ন্ত্রণ

সম্ভবমতো সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার আওতায় জৈবিক নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সর্বদা প্রতিরোধের ব্যবস্থা নিন। রূপালীসাদা মাছি প্রায় সব কীটনাশকের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত প্রতিরোধী হতে পারে, সুতরাং পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন ধরণের কীটনাশক ব্যবহারে ভাল সুফল পাওয়া যায়। যদি বিকল্প কোন ব্যবস্থা না পাওয়া যায়, তাহলে বাইফেনথ্রিন, বুপ্রোফেজিন, ফেনোক্সিকার্ব, ডেল্টামেথ্রিন, আজাডিরাক্টিন, ল্যামডা-সাইহ্যালোথ্রিন, সাইপারমেথ্রিন, পাইরিথ্রয়েডস ও পাইমেট্রোজিন বা স্পিরোমেসিফেন সংঘটিত কীটনাশক ব্যবহারে ভাল ফল পাওয়া যায়। সচেতন থাকুন যে কার্যকরী দমন ব্যবস্থা প্রায় ক্ষেত্রেই মাছির সংখ্যা এমন হারে কমিয়ে দেয় যে তা আর ক্ষতিকারক হয় না।

প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা

  • সহযোগী ফসলের (যেমন নাস্তারশিয়াম, জিনিয়া, হামিংবার্ড বুশ, আনারস sage, বি বাম) চাষ করুন যাতে তা সাদা মাছিকে আকর্ষণ বা বিকর্ষণ করতে পারে.
  • ভুট্টা, জোয়ার/বাজরা বা পার্ল মিলেটের মতো লম্বা গাছ সারিতে ঘন করে রোপণ করে সীমানা তৈরী করুন.
  • আপনার প্রতিবেশী চাষীর সঙ্গে আলোচনা করে একই সময়ে বীজ বপনের ব্যবস্থা করুন, মরশুম শুরু হওয়ার খুব আগেও নয় বা পরেও নয়.
  • ঘন করে বীজ বপন করুন.
  • চারাগাছ নতুন কেনার সময়ে বা অন্যত্র বহন করে নিয়ে যাওয়ার সময়ে সাদা মাছির চিহ্ন দেখা যায় কিনা তা নিরীক্ষা করুন.
  • হলুদ আঠালো ফাঁদ (প্রতি একরে ২০টা করে) সঙ্গে করে নিয়ে মাঠ তদারকি করুন.
  • নিয়ন্ত্রিত হারে সার প্রয়োগ নিশ্চিত করুন.
  • উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন কীটনাশকের ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন কারণ তা উপকারী পতঙ্গের ক্ষতি করতে পারে.
  • ডিম বা লার্ভা সহ পাতা অপসারণ করুন.
  • আপনার জমি থেকে ও মাঠের আশেপাশে আগাছা এবং বিকল্প আবাস নিয়ন্ত্রণ করুন.
  • ফসল সংগ্রহের পর মাঠ বা গ্রীনহাউস থেকে ফসলের অবশিষ্টাংশ অপসারণ করুন.
  • উষ্ণ তাপমাত্রায় স্বল্প সময়ের জন্যে জমি অনাবাদী অবস্থায় ফেলে রাখুন.
  • অতি বেগুনী রশ্মি শোষণকারী গ্রীনহাউস প্লাস্টিক ফিল্ম আক্রমণের হার কমাতে পারে.
  • অনাবাসী ফসল দ্বারা সাথীফসল চাষ করুন।.

চলমান ফসলের ডাক্তারের সাহায্যে আপনার জমিতে ফলন আরো বৃদ্ধি করুন!

এখন বিনামূল্যে এই অ্যাপ পান!